সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রযোজক ইকবালের জিডি

0

সাবেক স্বামী চলচ্চিত্র প্রযোজক নেতা মোহাম্মদ ইকবালের বিরুদ্ধে গত মঙ্গলবার হাতিরঝিল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন প্রযোজক তাহেরা ফেরদৌস জেনিফার। পরদিন বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) রাতে জেনিফারের নামে গুলশান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন ইকবাল।

সেখানে সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে চলচ্চিত্রের সুনাম নষ্টের অভিযোগ ও নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়েছেন তিনি। গুলশান থানার উপপরিদর্শক মশিউর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সংগীত পরিচালক ইমন সাহার সঙ্গে নতুন করে সম্পর্কে জড়িয়েছেন প্রযোজক তাহেরা ফেরদৌস জেনিফার। এমন অভিযোগ প্রযোজক নেতা মো. ইকবালের। তার অভিযোগ- নতুন সম্পর্কে জড়িয়ে জেনিফার এবং ইমন তাকে ব্ল্যাকমেইল করে যাচ্ছেন।

জেনিফারের অভিযোগের প্রসঙ্গে জানা গেছে, প্রযোজক নেতা মো. ইকবালের বিরুদ্ধে রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন জেনিফার। অভিযোগে তাকে জোরপূর্বক বিয়ে করতে চাওয়া এবং ইন্টারনেটে অশ্লীল ভিডিও বার্তা ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এর পাশাপাশি গত মঙ্গলবার ঢাকার একটি পাঁচ তারকা হোটেলে জেনিফারের সঙ্গে এক ব্যবসায়িক মিটিংয়ে অপ্রীতিকর ঘটনার অভিযোগও ইকবালের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ইকবালের দাবি ‘আমার বিরুদ্ধে জেনিফার যেসব অভিযোগ এনে জিডি করেছে তা সব মিথ্যা। গত মঙ্গলবার হোটেলে তার সঙ্গে আমার দেখা হয়েছে, কথার এক পর্যায়ে কথা কাটাকাটিও হয়েছে। কিন্তু আমি তার গায়ে কোনো হাত তুলিনি। এসব কিছু মিথ্যে, ইন্ডাস্ট্রিতে আমার বদনাম করার জন্যই এগুলো করা।’

জানা গেছে, চার বছর আগে ইকবালের সঙ্গে জেনিফারের বিয়ে হয়। এটা ছিলো দু’জনেরই দ্বিতীয় বিয়ে। বিচ্ছেদের পর জেনিফার ইকবালের বিরুদ্ধে মামলাও করেছে, তবে ইকবালের দাবি এটা তার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যপ্রনোদিত মামলা। যার কারণে জেনিফার বিভিন্ন সময় টাকাও নিয়েছে।

এ ব্যাপারে ইকবাল বলেন, আমি অসহায় হয়ে পড়েছি। দিনের পর দিন তার এই মনোভাবের আমি অনিরাপদ হয়ে পড়েছি। তিনি বিভিন্ন মেয়েকে নিয়ে কর্পোরেট লেভেলের মিটিংয়ে যান। যাদের নিযে যান ওই মেয়েদেরই একজন জেনিফারের নামে নানা কথা বলেছেন যা ইন্ডাস্ট্রির অনেকেই জানেন। ওই মেয়ের কথা থেকেই তার চরিত্রের আসল রূপ বেড়িয়ে আসে। এ নিয়ে তার সঙ্গে আমার কয়েকবার উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ও হয়েছে। সম্প্রতি তিনি সংগীত পরিচালক ইমন সাহার সঙ্গে সম্পর্কেও জড়িয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘এ ব্যাপারে ইমনের সঙ্গে আমার একাধিক কথাও হয়েছে, তারা বিয়ে করবে এমন সত্যতার ভয়েস রেকর্ডও আমার কাছে আছে। তারা দু’জন দুজনকে পছন্দ করে, ভালোবাসে বিয়ে করবে। এরপর জেনিফার নানাভাবে টাকার জন্য আমাকে চাপ দিয়ে আসছে। বিষয়গুলো ইমন সাহাও জানেন। তারা দু’জনে মিলে আমাকে ব্ল্যাকমেইল করছেন। কর্পোরেট পর্যায়ে চলে বলে সবসময় হুমকি ধমকি দিয়ে আসছেন।’

বিষয়গুলো নিয়ে জানতে পরিচয় জানিয়ে জেনিফারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি মিটিংয়ে ব্যস্ত, পরে কথা বলবেন বলে ফোন রেখে দেন। এমনকি বন্ধ পাওয়া গেছে সংগীত পরিচালক ইমন সাহার মুঠোফোন নম্বরটিও।

সূত্র : আজকালের খবর